Wednesday , July 17 2024
Breaking News

মানুষের প্রত্যাশিত গড় আয়ু কমেছে, বেড়েছে মৃত্যু হার

শেষ বার্তা ডেস্ক সংবাদ : বাংলাদেশের মানুষের প্রত্যাশিত গড় আয়ু কমেছে। বর্তমানে মানুষের প্রত্যাশিত গড় আয়ু দাঁড়িয়েছে ৭২ দশমিক ৩ বছর। ২০২০ সালের জরিপে প্রত্যাশিত গড় আয়ু ছিল ৭২ দশমিক ৮ বছর। তার আগে ২০১৯ সালে ছিল ৭২ দশমিক ৬ বছর। এর পাশাপাশি বেড়েছে মানুষের মৃত্যু হার। এক্ষেত্রে স্থুল মৃত্যুহার প্রতি হাজারে ৫ দশমিক ৭ জন। ২০২০ সালে ছিল ৫ দশমিক ১ জন। বাংলাদেশ স্যাম্পল ভাইটাল স্ট্যাটিসটিক্স ২০২১ শীর্ষক প্রতিবেদনে এসব তথ্য উঠে এসেছে।

সোমবার (১৭ মার্চ) রাজধানীর আগারগাঁওয়ের বাংলাদেশ পরিসংখ্যান ভবনে এসব তথ্য প্রকাশ করা হয়। বিবিএস সংশ্লিষ্টরা বলেছেন, করোনা মহামারির কারণে প্রত্যাশিত গড় আয়ু কিছুটা কমেছে। তবে পরিসংখ্যানগত দিক থেকে এটাকে কম বলে না।

বাংলাদেশ পরিসংখ্যান ব্যুরোর মহাপরিচালক মতিয়ার রহমানের সভাপতিত্বেতে প্রকাশনা অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন পরিকল্পনামন্ত্রী এম এ মান্নান। বিশেষ অতিথি ছিলেন পরিকল্পনা প্রতিমন্ত্রী ড. শামসুল আলম ও পরিসংখ্যান ও তথ্য ব্যবস্থাপনা বিভাগের সচিব ড. শাহনাজ আরেফিন। মূল প্রবন্ধ উপস্থান করেন প্রকল্প পরিচালক আলমগীর হোসেন। বক্তব্য দেন ডেমেগ্রোফিক অ্যান্ড হেলথ উইংয়ের পরিচালক মাসুদ আলম, মুক্ত আলোচনা পরিচালনা করেন মাসুদ আলম।

প্রতিবেদনে দেখা যায়, এক বছরের নিচের বয়সী শিশুর মৃত্যুহার প্রতি হাজারে মোট ২২ জন, যা ২০২০ ছিল ২১ জন। স্থানান্তরের ক্ষেত্রে প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, পল্লি হতে পল্লিতে স্থানান্তর প্রতি হাজারে ৩১ দশমিক ৯ জন, যা ২০২০ ছিল ৩২ দশমিক ৭ জন। শহর হতে পল্লিতে স্থানান্তর ৮ জন, যা ২০২০ সালে ছিল ৪ দশমিক ৭ জন। এক্ষেত্রে শহর থেকে গ্রামে মানুষের ফিরে যাওয়া মানুষের সংখ্যা বেড়েছে। শহর এলাকার অর্থাৎ শহরের মধ্যেই স্থানান্তর ১২৫ দশমিক ৯ জন, যা ২০২০ সালে ছিল ১০৯ দশমিক একজন। পল্লি হতে শহরে স্থানান্তর ৩০ দশমিক ৮ জন, যা ২০২০ সালে ছিল ৩১ দশমিক ৩ জন। শহর হতে শহরে স্থানান্তর ৯৫ দশমিক ১ জন, যা ২০২০ সালে ছিল ৭৭ দশমিক ৮ জন। বহির্গমন হার প্রতিহাজারে ৫৫ দশমিক ৯ জন, যা ২০২০ সালে ছিল ৭০ দশমিক ৩ জন।

প্রতি পরিবারের (খানা) সদস্য সংখ্যা ৪ দশমিক ৩ জন। এটি আগের জরিপেও একই ছিল। খানা প্রধানের শতকরা পুরুষের হার ৮৪ শতাংশ, অর্থাৎ ৮৪ শতাংশ পরিবারের প্রধান হচ্ছেন পুরুষ। যেটি ২০২০ সালে ৮৫ শতাংশ। কিন্তু নারী প্রধানের সংখ্যা বেড়ে দাড়িয়েছে ১৬ শতাংশ, যা ২০২০ সালে ছিল ১৫ শতাংশ।

পরিবারের বৈশিষ্ট সম্পর্কে প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ট্যাপ এবং নলকূপের খাবার পানি ব্যবহার করে শতকরা ৯৭ শতাংশ মানুষ, যা ২০২০ সালে ছিল ৯৮ দশমিক ৩ শতাংশ। উন্নত উৎস হতে খাবার পানি ব্যবহার করে ৯৮ দশমিক ২ শতাংশ। নিরাপদ খাবার পানি ব্যবহার করে ৭৩ দশমিক এক শতাংশ। বিদ্যুৎ ব্যবহার করে শতকরা ৯৬ দশমিক ৯ শতাংশ, যা ২০২০ সালে ছিল ৯৬ দশমিক ২ শতাংশ। সোলার ব্যবহার করে ২ দশমিক ৩ শতাংশ, যা ২০২০ সালে ছিল ২ দশমিক ৪ শতাংশ। স্যানিটারি টয়লেট ব্যবহার করে শতকরা ব্যবহার করে ৮৫ দশমিক ৮ শতাংশ, যা ২০২০ সালে ৮১ দশমিক ৫ শতাংশ। উন্মুক্ত স্থানে মল ত্যাগ করে ১ শতাংশ, যা ২০২০ সালে ছিল ১ দশমিক ৩ শতাংশ।

দেশের ৭ বছর থেকে তার উপরে সাক্ষরতার হার বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৭৬ দশমিক ৪ শতাংশ, যা ২০২০ সালে ৭৫ দশমিক ২ শতাংশ। পুরুষের হার ৭৮ দশমিক ৬ শতাংশ, যা ২০২০ সালে ৭৭ দশমিক ৪ শতাংশ। নারী ৭৪ দশমিক ২ শতাংশ, যা ২০২০ সালে ছিল ৭২ দশমিক ৯ শতাংশ।

১৫ বছর ও তার উপরে জনসংখ্যার সাক্ষরতার হার কমে দাঁড়িয়েছে ৭৪ দশমিক ১ শতাংশ, যা ২০২০ সালে ছিল ৭৫ দশমিক ৬ শতাংশ। এরমধ্যে পুরুষের হার ৭৭ শতাংশ, যা ২০২০ সালে ছিল ৭৮ দশমিক ২ শতাংশ। নারী ৭১ দশমিক ২ শতাংশ, যা ২০২০ ছিল ৭৩ শতাংশ।

গত বছরের জানুয়ারি পর্যন্ত দেশের জনসংখ্যা ছিল ১৭ কোটি ১২ লাখ ৯৭ হাজার জন। এর মধ্যে পুরুষ ৮ কোটি ৬৪ লাখ ৫৩ হাজার জন এবং নারী ৮ কোটি ৬৪ হাজার ৫৪ জন। প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, দেশের মোট জনসংখ্যার মধ্যে মুসলমানের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৮৯ শতাংশ, যা ২০২০ সালে ছিল ৮৮ দশমিক ৪ শতাংশ। হিন্দুসহ অন্যান্য কমে হয়েছে ১১ শতাংশ, যা ২০২০ সালে ছিল ১১ দশমিক ৬ শতাংশ।

প্রতিবেদনে আরও বলা হয়েছে, জন্ম নিয়ন্ত্রণ পদ্ধতি ব্যবহারকারীর হার বেড়েছে। ২০২১ সালের জরিপে এটি দাঁড়িয়েছে ৬৫ দশমিক ৬ শতাংশে, যেটি ২০২০ সালের জরিপে ছিল ৬৩ দশমিক ৯ শতাংশ। এক্ষেত্রে দেখা যায় গ্রাম ও শহর উভয় ক্ষেত্রেই বেড়েছে। পল্লিতে জন্ম নিয়ন্ত্রণ পতদ্ধতি ব্যবহার করে ৬৫ দশমিক ৭ শতাংশ, যা আগের বছর ছিল ৬৩ দশমিক ১ শতাংশ। শহরে ব্যবহার করে ৬৫ শতাংশ, যা আগের জরিপে ছিল ৬৪ দশমিক ৭ শতাংশ। এছাড়া জন্ম নিয়ন্ত্রণের আধুনিক পদ্ধতি ব্যবহার করে ৬৫ দশমিক ৬ শতাংশ। সনাতন পদ্ধতি ব্যবহার করে মাত্র ১ শতাংশ দম্পত্তি।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে এম,এ,মান্নান বলেন, এটি একটি গুরুত্বপূর্ণ জরিপ। তাই এটি আগামীতে প্রকল্পের আওতায় না করে বিবিএস’র রাজস্ব খাত থেকে নিয়মিতভাবে পরিচালিত হবে। এ প্রতিবেদনের মাধ্যমে দেশের হারির খবর উঠে এসেছে।

বিশেষ অতিথির বক্তব্যে ড.শামসুল আলম বলেন, এই জরিপের মাধ্যমে এসডিজির ২৬টি ইন্ডিকেটরের তথ্য পাওয়া যাবে। এটি একটি গুরুত্বপূর্ণ জরিপ। এখানে দেখা গেছে, জনসংখ্যা বৃদ্ধিও হার বেশি। যেটি উদ্বেগজনক। এক্ষেত্রে সরকারকে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিতে হবে। ট্যাপ বা টিউবওয়েলের পানি ব্যবহার বৃদ্ধি পাওয়ায় খুশি হওয়ার কিছু নেই। কেননা দেশের ৬১ জেলায় টিউবওয়েলের পানিতে আর্সেনিক আছে। সেইসঙ্গে ট্যাপের পানি পান করা কতটুকু নিরাপদ সেটিও প্রশ্ন সাপেক্ষ।

তিনি আরও বলেন,শহর থেকে মানুষ গ্রামে যাচ্ছে কেন? এর অন্যতম কারণ হলো- এখন গ্রামে কর্মসংস্থান বেড়েছে। কৃষির বহুমুখীকরণ হয়েছে। কৃষিজ কাজ বেড়েছে। তাই শহরের চেয়ে গ্রামে কাজ বেশি। ফলে মানুষ শহর ছেড়ে গ্রামে যাচ্ছে।

এছাড়াও

যারা রাজাকারের পক্ষে শ্লোগানে নেতৃত্ব দিয়েছে তাদের বিরূদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া প্রয়োজন : পররাষ্ট্রমন্ত্রী

মো: আকাশ: পররাষ্ট্রমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ড. হাছান মাহমুদ বলেছেন, কোটা আন্দোলনের …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *