Monday , June 17 2024
Breaking News

আবার সক্রিয় হয়েছে ওয়ান ইলেভেনের কুশীলবরা : তথ্যমন্ত্রী

নিজস্ব প্রতিনিধি:

আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক, তথ্য ও সম্প্রচারমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ বলেছেন, দেশে-বিদেশে ওয়ান ইলেভেনের কুশীলবরা এখন আবার সক্রিয় হয়েছে। তারা বিশেষ ধরনের সরকারের স্বপ্ন দেখছে। বিএনপিও বুঝতে পেরেছে নির্বাচনে তাদের কোন আশা নাই।

বুধবার (২৯ মার্চ) দুপুরে জাতীয় প্রেসক্লাবে প্রয়াত রাষ্ট্রপতি মো. জিল্লুর রহমানের দশম মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে আলোচনা সভায় তিনি এসব কথা বলেন। সভা আয়োজন করে জিল্লুর রহমান পরিষদ।

হাছান মাহমুদ বলেন, ২০০৮ সালের নির্বাচনে বিএনপি সর্বশক্তি দিয়ে অংশগ্রহণ করে আসন পেয়েছিল মাত্র ২৯ টি। ২০১৪ সালের নির্বাচন থেকে পালিয়ে গিয়েছিল বিএনপি। ডান-বাম, অতি ডান-অতি বাম , তালেবান সবাইকে একসাথে করে ২০১৮ সালের নির্বাচনে অংশগ্রহণ করে, মহিলা আসনসহ সিট পেয়েছিল ৭ টি। ডক্টর কামাল হোসেনের মত মানুষকে হায়ার করেছিল। হায়ারে খেলতে গিয়ে কামাল হোসেন সাহেব, ভালো খেলতে পারেননি।

বিএনপিকে উদ্দেশ্য করে মন্ত্রী বলেন, তারা (বিএনপি) জানে আগামী নির্বাচনে তাদের কোন সম্ভাবনা নাই। গত ১৪ বছরে জননেত্রী শেখ হাসিনার আমনে উন্নয়ন অগ্রগতি হয়েছে। এতে জনগণ শেখ হাসিনাকে আবার নির্বাচিত করবে, সেটা তারা বুঝতে পেরেছে। তারা যে জ্বালাও পোড়াও রাজনীতি করেছে। মানুষ পুরনো রাজনীতি ও অপরাজনীতি করেছে, সে জন্য মানুষ তাদের কাছ থেকে মুখ ফিরিয়ে নিয়েছে। সেজন্য ওয়ান ইলেভেন কুশীলবরা ও বিএনপি একজোট হয়েছে।

দেশে গন্ডগোল লাগানোর জন্য আন্তর্জাতিকভাবে সক্রিয় হয়েছে কেউ কেউ। বিশেষ পুরস্কার প্রাপ্ত ব্যক্তি , বিশেষ ওয়ান ইলেভেনের কুশীলবরা ও বিএনপিসহ সবাই মিলে সক্রিয় হয়েছে দেশে একটি গন্ডগোল লাগানোর জন্য, বিশেষ পরিস্থিতি তৈরি করার জন্য। সেটি বাংলাদেশের মানুষ আর কখনো হতে দিবে না। আগামী নির্বাচন যথাসময়ে অনুষ্ঠিত হবে এবং সংবিধান অনুযায়ী নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। নির্বাচন হবে নির্বাচন কমিশনের অধীনে। ওয়ান ইলেভেনের কুশীলবরা ও বিএনপি একত্রিত হয়ে ষড়যন্ত্র করে কোন লাভ হবে না।

প্রয়াত রাষ্ট্রপতি জিল্লুর রহমানের স্মৃতিচারণ করে তথ্যমন্ত্রী বলেন, তিনি এক এগারোর সময়ে দলকে যেভাবে গুছিয়েছেন তা সত্যিই প্রশংসনীয়। তিনি আপসহীন রাজনীতিবিদ। একজন সত্যিকারের ভালো মানুষ সমাজের চোখে। ১৯৭৯ তিনি যখন কারাগার থেকে মুক্ত হন তখন সাংবাদিকদের প্রশ্নের উত্তরে তিনি বলেছিলেন, “এখন আমার কাজ দুই আওয়ামী লীগকে এক করা।” তার মত মানুষ রাজনীতিতে বিরল। আমাদের নতুন প্রজন্মের অনেক কিছু শেখার আছে তার কাছ থেকে।

প্রয়াত রাষ্ট্রপতি মো. জিল্লুর রহমানের মেয়ে তানিয়া রহমান বলেন, আমার বাবা একজন অত্যন্ত ভালো মানুষ। তার কোন অহংকার ও আত্ম গরিমা ছিলনা। মানুষকে সহজে খুব কাছে টেনে নিতেন। তিনি একজন আদর্শবান মানুষ ছিলেন। তার আদর্শ বঙ্গবন্ধুর আদর্শ। তার সন্তান হিসেবে আমি গর্বলোচনা সভায় জিল্লুর রহমান পরিষদের সাধারণ সম্পাদক আখতারুজ্জামান খোকনের সভাপতিত্বে উপস্থিত ছিলেন, সাংস্কৃতিক প্রতিমন্ত্রী কে এম খালি প্রমুখ।

এছাড়াও

দেশের সব অর্জন ধ্বংস করেছে আওয়ামী লীগ: আমিনুল হক

এম আর রিমন: রাজধানীর পল্লবী এলাকায় বিগত দিনে গুমের শিকার থানা যুবদলের সাবেক সাধারণ সম্পাদক …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *