Thursday , April 25 2024
Breaking News

তলে তলে’ কিছু হয়নি: পররাষ্ট্রমন্ত্রী

শেষবার্তা ডেস্ক : নির্বাচনে বিপুলসংখ্যক স্বতন্ত্র প্রার্থী থাকায় আন্তর্জাতিক গ্রহণযোগ্যতা নিয়ে কোনো প্রশ্ন উঠবে না বলে আশা করছেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এ কে আব্দুল মোমেন। বিদেশে নির্বাচন নিয়ে কোনো টানাপোড়েন নেই দাবি করে ‘তলে তলে’ কিছু হয়নি বলেও জানান তিনি।

বুধবার (২৭ ডিসেম্বর) বিকেলে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে সাংবাদিকদের সঙ্গে আলাপকালে মন্ত্রী এসব কথা বলেন। 

সাংবাদিকরা জানতে চান, নির্বাচন নিয়ে বড় দেশগুলোর টানাপোড়ন কিংবা তলে তলে আপস হয়ে গেল কি না? জবাবে তিনি বলেন, কোনো টানাপোড়েন নাই। কারণ, আমরা অবাধ ও সুষ্ঠু এবং সংঘাতহীন নির্বাচন করার বিষয়ে প্রতিজ্ঞাবদ্ধ। তলে তলে কিছুই হয়নি।

বড় দেশগুলোর সঙ্গে ভালো সম্পর্কের কথা জানিয়ে মোমেন বলেন, ভারত, আমেরিকা, ইউরোপীয় ইউনিয়ন আমাদের বন্ধু। তারা আমাদের উন্নয়ন সহযোগী। তাদের সঙ্গে আমাদের অনেক দিনের সম্পর্ক। আমেরিকার সঙ্গে আমাদের খুব ভালো সম্পর্ক। একাত্তরে আমেরিকা আমাদের বিপক্ষে থাকলেও যেদিন আমরা স্বাধীনতা পেলাম, তারপর থেকে আমেরিকা আমাদের প্রতিনিয়ত সহযোগিতা করছে। সব সময় সমর্থন দিয়েছে। জাতিসংঘের সদস্য পদের জন্য ১৬টা প্রস্তাব আসে, ১৫টায় আমেরিকা আমাদের পক্ষে ভোট দিয়েছে।

মন্ত্রী বলেন, ভারত তো সবসময় আমাদের সহযোগিতা করে আসছে। এখনও সহযোগিতা করছে। তাদের সঙ্গে আমাদের সোনালি অধ্যায়। ইউরোপ আমাদের বড় বাজার। তারা যদি আমাদের অপছন্দ করত আমাদের জিনিস কিনত না। তারা (যুক্তরাষ্ট্র) লেবারের অবস্থা ভালো করতে চান, আমরা স্বাগত জানাই। তবে সেটা বাস্তব হতে হবে।

নির্বাচন নিয়ে হঠাৎ করে বিদেশি কূটনীতিকদের চুপ হয়ে যাওয়া প্রসঙ্গে এক প্রশ্নের জবাবে মন্ত্রী বলেন, আমরা আমাদের নীতিতে বিশ্বাসী। যারা নীতিতে বিশ্বাস করে সব দেশ তাদের পছন্দ করে। আমরা অবাধ ও সুষ্ঠু নির্বান চাই। আমরা গণতান্ত্রিক প্রক্রিয়া সামনে নিয়ে যেতে চাই। আমরা বাংলাদেশে গণতন্ত্র নষ্ট করতে চাই না, আমরা সন্ত্রাস চাই না। এটা আমাদের লক্ষ্য। এটা পশ্চিমাদেরও লক্ষ্য। সুতরাং আমরা তাদের সঙ্গে আছি। তারা (বিদেশিরা) দেখছে উল্টো দল (বিএনপি) তো মুখে এক কথা বলে, কাজে তারা সন্ত্রাসী। কেউ তাদের পছন্দ করে না।

বিএনপির সমালোচনা করে মোমেন বলেন, এরা তো মনে হচ্ছে, অগণতান্ত্রিক, সন্ত্রাসী দল। সন্ত্রাসকে কেউ পছন্দ করে না। আমার মনে হয়, তাদের নেতৃত্বের গাফিলতি এবং অপরিপক্কতার কারণে তারা অনেকের (বিদেশিদের) সমর্থন হারিয়েছে।

মোমেন বলেন, আমেরিকা যেটা বলেছিল, যারা নির্বাচন প্রতিহিত করবে বা বর্জন করবে তাদের তারা ভিসানীতি প্রয়োগ করবে। আমি খুব খুশি হবো, যদি তারা সত্যি সত্যি প্রয়োগ করে। তারা (বিএনপি) তো নির্বাচন বর্জন করছে। যাতে নির্বাচন না হয় তার জন্য প্রচার। আমেরিকা যে কমিটমেন্ট করে সেটা করলে ভালো।

ভোটারদের ভোটকেন্দ্রে আনা চ্যালেঞ্জ হবে জানিয়ে মোমেন বলেন, ‘আমাদের এখন বড় চ্যালেঞ্জ হলো, আমরা চাই অধিক সংখ্যক লোক যেন কেন্দ্রে এসে ভোট দেয়। উল্টো দল (বিএনপি) আতঙ্ক ছড়াচ্ছে। কোনো আতঙ্কের কারণ নাই। এবারের নির্বাচন কমিশন খুব শক্তিশালী। আমাদের পুলিশ বাহিনী অনেক উন্নত। আতঙ্কের কোনো কারণ নাই।

এছাড়াও

শহরকে বাঁচাতে দখল এবং দূষণ রোধে কঠিন সিদ্ধান্ত নিতে হবে:মেয়র আতিক

মো: সোলায়মান : আমরা কেউ মরণফাঁদ দেখতে চাই না বলেছেন, ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশন মেয়র …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *